বাকেরগঞ্জে সৎ ও জনবান্ধব নারী কর্মকর্তা ইউএনও মাধবী রায়

0

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি খান মেহেদীঃ ১৪ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত বরিশাল জেলার সবচেয়ে বড় উপজেলা বাকেরগঞ্জ । নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হিসেবে বেশ দাপটের সাথে সামলাচ্ছেন এই নারী । ইউএনও’র মত গুরুত্বপূর্ণ পদে প্রশাসন সামলাতে গিয়ে ভয়-ভীতি আর প্রভাবশালীদের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে তিনি একের পর এক অভিযান চালিয়ে যাচ্ছেন। নারী হয়েও শক্ত ঝান্ডায় একের পর এক অভিযান চালিয়ে সমাজে শুদ্ধতা আনার চেষ্টা করছেন।

মাধবী রায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা[UNO] বাকেরগঞ্জ। এই কর্মকর্তা জন্মগ্রহন করেন বাউফল উপজেলার আদাবারিয়া গ্রামে। তার বাবা ব্যাংকার হওয়াতে তার শৈশব ও কৈশোর কেটেছে দেশের নানা প্রান্তে। কৃতিত্বের সহিত প্রাথমিক স্কুল জীবন শেষ করে বাউফল সরকারী বালিকা বিদ্যালয় হতে মাধ্যমিক উত্তীর্ন হন। পটুয়াখালি সরকারী মহিলা কলেজ হতে সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করেন। কৃতিত্বের সহিত স্নাতক ও স্নাতক উত্তর ডিগ্রি লাভ করেন বি এম কলেজ হতে।
[৩১ তম BCS] উত্তীর্ন হয়ে সহকারী কমিশনার (বাগেরহাট, খুলনা) হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। সহকারী কমিশনার ভুমি(A.C LAND) হিসেবে সুনামের সহিত দ্বায়িত্ব পালন করেছেন কাউখালি, পিরোজপুরে।
UNO হিসেবে বাকেরগঞ্জে যোগ দানের পর অদ্যবদি তিনি তার কর্মদক্ষতা ও মহৎ গুনাবলির মাধ্যমে উপজেলার সব শ্রেনী পেশার মানুষের (অধিনস্ত কর্মকর্তা কর্মচারি, রাজনীতিবিদ, সুশিল সমাজ, সাংবাদিক) সহ সকলের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছেন।
জনকল্যানমুলক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় সহ সকল অনুষ্ঠানে উপজেলা ব্যাপি তার সরব উপস্থিতি আমাদের বিমোহিত করে। কর্মজীবনে অসম্ভব সৎ ও প্রচার বিমুখ এই কর্মকর্তা তার কাজের মুল্যায়ন স্বরুপ পেয়েছেন বহু সম্মাননা ও শুভেচ্ছা স্বারক।
ব্যাক্তি জীবনে একজন ব্যাংকার (উপ পরিচালক বাংলাদেশ ব্যাংক) এর সহধর্মিনী এবং ২ সন্তানের গর্বিত মা হিসেবে কর্মজীবনের পাশাপাশি সাংসারিক জীবনেও সমান ভাবে সফল এই গুনিজন।
করোনা কালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জনগন কে সুস্থ রাখতে তার আন্তরিক প্রচেস্টায় উপজেলাবাসি যারপর নাই কৃতজ্ঞ।
এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে তিনি বাকেরগঞ্জ উপজেলার সকল কে করোনাকালো সরকারী নির্দেশনা মেনে চলতে ও সচেতন থাকার অনুরোধ জানান। এ সময় তিনি আরো বলেন, নারীরা কখনোই দুর্বল হিসেবে জন্ম নেয় না। অশিক্ষা এবং অসচেতনতাই আমাদের দুর্বল হিসেবে তৈরি করে। তাই আমাদের স্বশিক্ষিত এবং স্বনির্ভর হতে হবে। যদি আমরা স্বনির্ভর হই এবং নিজের সিদ্ধান্ত নিজে গ্রহণ করতে শিখি, তবে কখনোই সমাজের দোহাই দিয়ে কেউ আমাদের পেছনে ধরে রাখতে পারবে না।