আপনার – আমার মৃত্যু শুধু মাত্র একটি সংখ্যা তাদের কাছে

0

স্প্যানিশ ফ্লুকে মানব ইতিহাসের সবচেয়ে মারাত্মক মহামারী হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ১৯১৮ হতে ১৯২০ সাল পর্যন্ত তিন ধাপে এটি সংক্রমিত হয়। সারাবিশ্বে ৫০ কোটির মত আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করে ৫ কোটিরও অধিক মানুষ।

বেশির ভাগ প্রাণহানির ঘটনা ঘটে দ্বিতীয় ধাপে। সেই সময়ে পৃথকীকরণ ও সামাজিক দূরত্ব ব্যবস্থায় লোকজন এতটাই অধৈর্য্য ও খারাপ অনুভব করে যে, প্রথম লকডাউন তুলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষ রাস্তায় নেমে সব কিছু বাদ দিয়ে আনন্দ-উল্লাসে মেতে ওঠে। দ্বিতীয় ধাপের পরবর্তী সপ্তাহগুলিতে তারা মারাত্মকভাবে সংক্রমিত হয় এবং ফলশ্রুতিতে কয়েক কোটি লোক মারা যায়।

নভেল কোরোনাভাইরাসের সংক্রমণ বর্তমানে বিশ্বব্যাপী মহামারি আকার ধারণ করেছে। ইতালি, স্পেন, ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, আমেরিকাসহ বিশ্বের উন্নত দেশসমূহও কোভিড-১৯ মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে। সরকারের সময়োচিত ও যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের ফলে এখনও বাংলাদেশে এ রোগের ব্যাপক সংক্রমণ ঘটেনি এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। দেশে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ৪০ হাজারের বেশি মানুষ; আর মৃত্যুবরণ করেছে সাড়ে ৫ শত জনের মত। গত ২ মাসের বেশি সময় ধরে জনস্বার্থে অফিস, আদালত, কলকারখানা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারি আদেশে বন্ধ রয়েছে। স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় এবং কিছু ক্ষেত্র বাদে আগামী ৩১ মে হতে সীমিত আকারে শর্ত সাপেক্ষে চালু হচ্ছে সার্বিক কর্মকাণ্ড।

দেশের অর্থনীতির স্বার্থে, কেবলমাত্র দাপ্তরিক কার্যক্রমের ক্ষেত্রে নিয়ম-নীতি কিছুটা শিথিল করা হয়েছে। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে করোনোভাইরাস সংক্রান্ত স্বাস্থ্যবিধি আগের মতই কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে সবাইকে। কোন অবস্থাতেই অবহেলার সুযোগ নেই।

মনে রাখা প্রয়োজন- আমার/আপনার মৃত্যু অন্যের জন্য একটি সংখ্যা মাত্র, কিন্তু নিজের পরিবারের কাছে পুরো পৃথিবীর চাইতেও বেশি।

আসুন, আমাদের সময়ে আমরা একশ’ বছর আগের স্প্যানিশ ফ্লু’র ঘটনাকে অনুসরণ না করি। “History repeats itself”- এই প্রবাদ বাক্যকে সম্মিলিতভাবে আমরা ভুল প্রমাণিত করি।